ডার্ক মোড
Sunday, 19 May 2024
ePaper   
Logo
পটুয়াখালীতে স্বস্তির বৃষ্টিতে খুশি আমন চাষীরা

পটুয়াখালীতে স্বস্তির বৃষ্টিতে খুশি আমন চাষীরা

পটুয়াখালী প্রতিনিধি

পটুয়াখালীর দশমিনায় দীর্ঘদিন খড়ার পর স্বস্তির বৃষ্টিতে ধানের ক্ষেত গুলো সতেজ হয়েছে। এতে স্বস্তি দেখা দিয়েছে স্থানীয় কৃষকদেরর মাঝে। দীর্ঘদিন খড়ার কবলে পড়ে আমন ধানের ক্ষেত গুলো শুকিয়ে গেছে, অনেক ধানের গাছ লালচে আকার ধারণ করেছিল। গত কয়েক দিন যাবৎ স্বস্তির বৃষ্টিতে আমন ধানের ক্ষেতগুলো সবুজে ভরে উঠেছে।

উপজেলা কৃষি সূত্রে জানা যায়, দশমিনা উপজেলার বেশিভাগ মানুষের আয়ের উৎস কৃষি। চলতি মৌসুমে আমন ধানের আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৮হাজার হেক্টর, অর্জিত হয়েছে ১৮হাজার ৫শ’ হেক্টর। আমন ধানের ক্ষেত গুলোতে এ মুহুর্তে বৃষ্টি খুবই প্রয়োজন ছিলো। গত কয়েক দিন যাবৎ থেমে থেমে বৃষ্টির ফলে আমন ধানের ভালো উৎপাদন আশা করা যাচ্ছে।

উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের দক্ষিন দাসপাড়া এলাকার আমন চাষী শংকর চন্দ্র শীল, মজিদ হাওলাদার, জামাল হাওলাদার, আলাউদ্দিন হাওলাদার ও মজিবুর রহমান বলেন, এ বৃষ্টি আমাদের কাছে ঈদের খুশির মতো। তবে এ বৃষ্টি যদি মাসখানে আগে হতো তাহলে আমাদের আমন ক্ষেতে রোগের দেখা মিলতোনা। এখন ধানের চারা তাড়াতাড়ি বড় হবে। আমন ধানের গাছ হতে অতি দ্রæত ধানের শীষ বের হবে।

অণ্যআরেক চাষী উপজেলার বহরমপুর ইউনিয়নের বগুড়া গ্রামের ইউনুছ তালুকদার বলেন, এ বছর বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকে বৃষ্টিপাত না হওয়ায় আমন ধানের ক্ষেত গুলো শুকিয়ে গেছে। গাছ বৃদ্ধি কম হয়েছে। বৃষ্টি হওয়ায় গাছ ও ফসলের জন্য ভালো হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার জাফর আহম্মেদ বলেন, চলতি মৌসুমের শুরুতে কম বেশি বৃষ্টি হলেও মাঝ পথে র্দীঘ সময় বৃষ্টির পানি না হওয়া কৃষকরা একটু চিন্তিত হয়ে পড়েন। এই বৃষ্টির ফলে আমন ধানের ক্ষেতগুলোর অবস্থান পরির্বন হবে। আমন ধানের ফলন ভাল হবে।

মন্তব্য / থেকে প্রত্যুত্তর দিন