ডার্ক মোড
Sunday, 19 May 2024
ePaper   
Logo
স্নোটেক্স গ্ৰুপের তৈরি পোষাক কারখানা পরিদর্শনে ইউজিসি প্রতিনিধি দল

স্নোটেক্স গ্ৰুপের তৈরি পোষাক কারখানা পরিদর্শনে ইউজিসি প্রতিনিধি দল

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনা ২০২৩-২০২৪ বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে নলেজ শেয়ারিং, উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতা বৃদ্ধি এবং পোশাক শিল্পের ব্যবস্থাপনা বিষয়ে ধারণা নিতে ইউজিসি’র একটি প্রতিনিধি দল স্নোটেক্স গ্ৰুপের পোশাক কারখানা পরিদর্শন করেছে।

সোমবার (০৪ মার্চ) ইউজিসি সচিব ড. ফেরদৌস জামান- এর নেতৃত্বে ২৫ জনের একটি প্রতিনিধি দল ঢাকার সন্নিকটে ধামরাইয়ে অবস্থিত স্নোটেক্স গ্ৰুপের সম্পূর্ণ রপ্তানীমুখী স্নোটেক্স আউটওয়্যার লিমিটেড পরিদর্শন ও জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভা করে।

এসময় ইউজিসি সচিব ড. ফেরদৌস জামান বলেন, বর্তমান সরকারের ভিশন ২০৪১ বাস্তবায়নে দেশের শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানগুলোর চাহিদার সাথে সমন্বয় রেখে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে দক্ষ জনবল গড়ে তুলতে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

একইসঙ্গে শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানগুলোতে কি ধরনের দক্ষ জনবল প্রয়োজন সেটিও উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্ধারণ করতে হবে। এজন্য দু’পক্ষের সহযোগিতা অত্যন্ত জরুরি বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এসময় তিনি স্নোটেক্স গ্রুপসহ বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠানকে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। এছাড়া, শিক্ষার্থীদের জন্য ইন্টার্ণশিপ সুবিধা চালু করতে শিল্প-প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসার অনুরোধ করেন।

স্নোটেক্স গ্রুপের পরিচালক (অপারেশন্স) তোফাজ্জল হোসেন বলেন, দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে স্নোটেক্স গ্রুপ। তাদের পোশাক কারখানায় কর্মীদের সুরক্ষার জন্য নিরাপদ ও বৈষম্যহীন পরিবেশ তৈরি করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দেশে আরামদায়ক ও ফ্যাশনেবল পোশাকের চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এজন্য ফ্যাশন ডিজাইন অ্যান্ড এপারেল ইঞ্জিনিয়ারিং , সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ও দক্ষ ব্যবস্থাপক তৈরিতে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো উদ্যোগ দিতে পারে বলে তিনি জানান। এছাড়া, পোশাক শিল্পে দক্ষ জনবল তৈরি, ফ্রন্টিয়ার প্রযুক্তির ব্যবহার, নিরাপত্তা এবং টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করা গেলে এ খাত আরও এগিয়ে যাবে বলে তিনি মনে করেন।

অনুষ্ঠানে ইউজিসি পরিচালক ড. সুলতান মাহমুদ ভূইয়া, অতিরিক্ত পরিচালক জেসমিন পারভীন, জিয়াউর রহমান ও শাহীন সিরাজসহ বিভিন্ন পর্যায়ের মোট ২৫ জন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ‘স্নোটেক্স’ ২০০০ সালে বায়িং হাউজের মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে। ২০০৫ সালে নিজেদের প্রথম কারখানা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে ‘স্নোটেক্স অ্যাপারেলস’। এর ধারাবাহিকতায় ২০১১ সালে ‘কাট অ্যান্ড সিউ’ এবং ২০১৪ সালে ‘স্নোটেক্স আউটারওয়্যার লিমিটেড’ প্রতিষ্ঠা করে। সর্বশেষ ২০২০ সালে ‘স্নোটেক্স স্পোর্টসওয়্যার লিমিটেড প্রতিষ্ঠা করা হয়।

মন্তব্য / থেকে প্রত্যুত্তর দিন