ডার্ক মোড
Sunday, 19 May 2024
ePaper   
Logo
ইসরায়েলে কর্মরত মার্কিনীদের ভ্রমণ সতর্কবার্তা যুক্তরাষ্ট্রের

ইসরায়েলে কর্মরত মার্কিনীদের ভ্রমণ সতর্কবার্তা যুক্তরাষ্ট্রের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

বিভিন্ন মিশন ও কূটনৈতিক ইস্যু সংক্রান্ত কারণে যুক্তরাষ্ট্রের যেসব কর্মকর্তা ও কর্মী ইসরায়েলে অবস্থান করছেন, তাদের জন্য ভ্রমণ বিষয়ক বিধিনিষেধ জারি করে বার্তা দিয়েছে সেখানকার মার্কিন দূতাবাস। সেই বার্তায় সরকারি-বেসরকারি মিশনে কর্মরত মার্কিন কর্মকর্তা ও কর্মীদের বৃহত্তর জেরুজালেম, তেল আবিব এবং বিয়েরশেভা এলাকার বাইরে ভ্রমণ না করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গত ১ এপ্রিল সিরিয়ার ইরানি কনস্যুলেটে এক বোমা হামলায় ১৩ জন নিহত হয়েছিলেন। হামলাটি যে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা বাহিনী (আইডিএফ) চালিয়েছিল— বিভিন্ন সাক্ষ্য ও আলামতে তার প্রমাণ পাওয়া যেছে। তবে দাপ্তরিকভাবে ইসরায়েল এখনও এ হামলার দায় স্বীকার করেনি।

ইরান এই হামলার যথাযথ প্রতিশোধ নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। ইরানের এই ঘোষণার জেরেই ইসরায়েলের মার্কিন দূতাবাস অতিসাম্প্রতিক এই ভ্রমণ বিষয়ক বিধিনিষেধ জারি করেছে বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিক রাজনীতি বিশ্লেষকরা।

হামলার পর যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেন আমির আবদুল্লাহিয়ানকে ফোন করে সহিংসতার জের আর না বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছিলেন, তবে ইরান সেই আহ্বানে সাড়া দেবে— এমন সম্ভাবনা খুবই কম বলে মনে করছেন রাজনীতি বিশ্লেষকরা।

কারণ, নিহত ১৩ জনের মধ্যে ইরানের সামরিক বাহিনীর এলিট শাখা কুদস ফোসের সিরিয়া ও লেবানন শাখার কমান্ডারসহ কয়েকজন উচ্চপদস্থ সামরিক কর্মকর্তা ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ইসরায়েলের সঙ্গে ইরানের সম্পর্ক চরম বৈরী। ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকা নিয়ন্ত্রণকারী গোষ্ঠী হামাস, লেবাননভিত্তিক সশস্ত্র ইসলামি গোষ্ঠী হিজবুল্লাহসহ কয়েকটি সশস্ত্র গোষ্ঠীকে নিয়মিত ইরান মদত দেয়। এই গোষ্ঠীগুলোর মূল লক্ষ্য ইসরায়েল রাষ্ট্রকে নিশ্চিহ্ন করা।

তাই গত ১ এপ্রিলের হামলার পর ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে ইরান যে পাল্টা হামলা চালাবে, তার সম্ভাবনা প্রবল। গত রোববার ইরানের একজন উচ্চপদস্থ সামরিক কর্মকর্তা ইঙ্গিত দিয়েছেন, বিশ্বের যে কোনো এক বা একাধিক দেশে ইসরায়েলি দূতাবাসের ওপর হামলা চালানো হতে পারে।

ইরানের এই কঠোর অবস্থানের প্রতিক্রিয়ায় ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ত সম্প্রতি হুমকি দিয়ে বলেছেন, যদি ইসরায়েলের ভূখণ্ড কিংবা দূতাবাসে ইরানি হামলার কোনো ঘটনা ঘটে, তাহলে ইরানের ভূখণ্ডে সরাসরি হামলা চালাবে আইডিএফ।

এদিকে বুধবার এক ভাষণে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ইরান যে কোনো সময়ে হাশলা চালাতে পারে এবং ইসরায়েলকে ‘লৌহকঠিন’ সমর্থন দিতে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

প্রেসিডেন্টর এই ভাষণের পরদিনই সতর্কবার্তা জারি করল ইসরায়েলের মার্কিন দূতাবাস।

সূত্র : বিবিসি

মন্তব্য / থেকে প্রত্যুত্তর দিন